PMeVidya: ব্যাপক শিক্ষার্থীদের অস্বীকার করার প্ল্যাটফর্ম

শিক্ষা

মাল্টি-মোড ডিজিটাল অনলাইন শিক্ষার জন্য প্রোগ্রাম চালু করার মাধ্যমে এই জনবিরোধী সরকার আবারও শিক্ষায় বিদ্যমান বর্তমান বৈষম্যকে আরও প্রশস্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে | অনলাইন প্রযুক্তি চালিত শিক্ষা কার জন্য? এটি কোন লক্ষ্যে কাজ করছে এবং কেন সরকার লকডাউনের শেষ পর্যায়ে অনলাইনে শিক্ষার উপর জোর দিচ্ছে?

অন্যান্য দেশ যখন লকডাউন থেকে বেরিয়ে আসতে এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলি পুনরায় চালু করার জন্য নতুন ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য প্রস্তুত, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সরকার অনলাইন ক্লাসের জন্য চাপ দিচ্ছে। বেশ আশ্চর্যজনকভাবে, ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীথারামন তাঁর ফাঁকা স্টিমুলাস প্যাকেজ ঘোষণার মধ্যে PMeVidya র ঘোষণা করেছিলেন।

এটি এখনও পরিষ্কার নয় যে ভারতে এখনও কি কোনও কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন (এইচআরডি) মন্ত্রী রয়েছেন, যিনি কোভিড -১৯-পরবর্তী পর্যায়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলি পুনরায় চালু করার জন্য ব্যাপক ব্যবস্থা নেবেন? যদি এইচআরডি মন্ত্রী থাকেন, তবে কেন সীথারামন অনেক ঘটা করে এই PMeVidya শুরু করলেন ? এটি ঘোষণার জন্য সঠিক সুরটি নির্ধারণ করে এবং তা হল জনসাধারণের শিক্ষার শেষ অংশগুলি তাদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়ে লাভজনক করার জন্য অনলাইন স্টার্ট-আপগুলির মুনাফা তৈরীর ক্ষেত্র প্রস্তুত করা।

কোভিড -১৯ মহামারীটি বহুমাত্রিক দিক দিয়ে আমাদের বাস্তবিক অবস্থা কে ধ্বংসের মুখে ফেলেছে। যখন কয়েক লক্ষ বাচ্চারা তাঁদের জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলে পায়ে হেঁটে ঘরে ফিরছে, সুবিধাভোগী বিত্তশালী ঘরের বাচ্চারা তাঁদের অনলাইন ক্লাসে অংশ নিতে ল্যাপটপ সহ স্টাডিরুমে বসে আছে। সীথারামনের মতে, PMeVidya একটি মাল্টি-মোড পোর্টাল এবং প্রথম থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত প্রতিটি স্তরের জন্য একটি করে নির্দিষ্ট টিভি চ্যানেল সরবরাহ করবে, তবে তিনি কি জানেন না যে অনলাইন শিক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য যে টিভি, বিদ্যুৎ, কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা অন্যান্য অতি প্রয়োজনীয় গ্যাজেট এবং আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতির প্রয়োজন হয় তার সুযোগের ক্ষেত্রে ভারতে সীমাহীন অসাম্য রয়েছে? তাহলে এই অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম কার জন্য? উত্তরটি হ’ল সুবিধাভোগীদের জন্য।

ডিজিটাল বৈষম্য ভারতে একটি নিদারুণ সত্য। এমনকি বর্তমানেও, অনেক ভারতীয়ের বাড়িতে ২৪x৭ বৈদ্যুতিক সরবরাহ নেই। মিশন অন্ত্যোদয়ের মতে, গ্রাম উন্নয়ন মন্ত্রক (2017-2018) দ্বারা পরিচালিত গ্রামাঞ্চলের দেশব্যাপী সমীক্ষা অনুযায়ী, ১৫.৮৪% গ্রামীণ পরিবার দৈনিক এক থেকে আট ঘন্টা বিদ্যুৎ পেয়েছে, ৩২.৫৬% নয় থেকে ১২ ঘন্টা বিদ্যুৎ পেয়েছে

এবং শুধুমাত্র ৪৭.২৬% দৈনিক ১২ ঘণ্টার বেশি বিদ্যুৎ পেয়েছে। তদুপরি, মাত্র ৮% শিক্ষার্থী অনলাইনে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে!

এমন পরিস্থিতিতে মোদী সরকার কীভাবে অনলাইনে শিক্ষাব্যবস্থা তে জোর দিচ্ছে? যদি এটি কেবল কোভিড -১৯ – জনিত পরিস্থিতির কারণে হয় তবে লকডাউন শেষে এটি কেন ঘোষণা করা হয়েছে? লকডাউন পরবর্তী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় খোলার বিষয়ে কেন কোন সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নেই? তাহলে কি এটি কেবল সুবিধাভোগী শ্রেণীর জন্য? সেই শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের কী হবে যাদের না আছে কেবল টিভি, ইন্টারনেট বা মোবাইল ফোনের ব্যবহারের উপায় বা না আছে এই একতরফা, একমুখী শিক্ষাব্যবস্থার জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ? মন্ত্রকটি কি এতগুলি রাজ্য বোর্ড পরিচালিত আমাদের বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার বৈচিত্র্যকে বিবেচনা করেছে? কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যগুলির সাথে এই প্রস্তাব নিয়ে কি আলোচনা করেছে? কতগুলি পাঠ্যপুস্তক QR কোডেড হয়েছে এবং যদি তাই হয়, দীক্ষা অ্যাপটি ব্যবহারের জন্য কত শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকের ক্যামেরা সহ স্মার্টফোন রয়েছে? কেন্দ্রীয় সরকার কবেই বা আর যুক্তরাষ্ট্রের ধারণা কে গুরুত্ব দিয়েছে?

শিক্ষার বিষয়ে জাতীয় নমুনা সমীক্ষার (২০-১-২০১৮) প্রতিবেদন অনুসারে, মাত্র ২৪% ভারতীয় পরিবারের একটি ইন্টারনেট সুবিধা রয়েছে,যখন ৬৬.৬৬% ভারতীয় জনগোষ্ঠী গ্রামে বাস করেন, গ্রামীণ পরিবারগুলির মধ্যে কেবল ১৫% পরিবারের ইন্টারনেট পরিষেবা রয়েছে। শহুরে পরিবারগুলির জন্য এর অনুপাত ৪২%। এই তীব্র অসাম্য লিঙ্গ পরিপ্রেক্ষিতে আরও সুস্প্ট। ৫-২৪ বছরের মধ্যে সদস্য সম্বলিত সমস্ত পরিবারের মধ্যে কেবল ৮% এর কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট সংযোগ উভয়ই রয়েছে। এই পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে অনলাইন শিক্ষার জন্য চাপ দেওয়া বিদ্যমান বৈষম্যকে আরও গভীর করবে এবং অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল শ্রেণিকে শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত করবে ।

এই অনুকূল আবহাওয়াকে মূলধন করে অনলাইন শিক্ষা শিল্প স্কুল শিক্ষাকেও বাণিজ্যিকীকরণের মাধ্যমে শিক্ষা খাতের নিয়ন্ত্রণ দখলের প্রচেষ্টা তীব্র করবে। শিক্ষার এই ধরনের বাণিজ্যিকীকরণ – বৃহৎ পুঁজির দীর্ঘকালীন লালিত স্বপ্ন – শেষ পর্যন্ত প্রেমের বৃত্তটি পূর্ণ করবে। সম্প্রতি, নীতিন গডকরি, অন্য একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী , যার মন্ত্রকের সাথে শিক্ষার কোনও যোগসূত্র নেই, বৃহৎ ক্রোনি- মুৎসুদ্দি পুঁজিপতি দের ভারতের অনলাইন শিক্ষার প্ল্যাটফর্মে বিনিয়োগের জন্য প্ররোচিত করেছিলেন।

অনলাইন শিক্ষাব্যবস্থার বিষয়ে উৎফুল্ল হওয়া গণমাধ্যম এবং সরকার তার ত্রুটিগুলি বিবেচনা করার মতো মানসিকতায় নেই বা সম্ভবত তারা তাদের স্বার্থের জন্যই এটি করছে।

বেকার পিতা-মাতা, বাচ্চাদের প্রতি ক্রমবর্ধমান সহিংসতা, বাড়িতে জায়গার অভাব, খাবার নেই, শাস্তিমূলক লকডাউনের কারণে মানসিক চাপ ইত্যাদির ফলে বাচ্চাদের পড়াশুনার প্রবাহকে চালু রাখা আরও শক্ত হয়ে উঠবে। পাল্টা অভিবাসন দরিদ্র মাতা পিতাদের থেকে তাদের সন্তানদের গুণমান সম্পন্ন শিক্ষা দেবার স্বপ্ন কে ছিনিয়ে নিয়েছে। পরিস্থিতির তীব্রতা আগামী কয়েক মাসের মধ্যে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

এই সমস্ত ঘটনার সময়, ইকো চেম্বারে বসবাসরত মোদী সরকার অনলাইনের শিক্ষা বা টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে শেখার বিষয়ে কথা বলছে বাস্তব পরিস্থিতির প্রতি সংবেদনশীল না হয়েই।

প্রত্যেক শিশুর কি টিভি চ্যানেল দেখার বা রেডিও শোনার জন্য বাড়ি আছে? যখন উদ্বেগের বিষয়টি হওয়া উচিত যে কীভাবে সমস্ত মানের শিশুদের তাদের স্কুলে ফিরে আসা এবং সরকারী বিদ্যালয়গুলিকে কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য সুসজ্জিত করা যায়, বরাবরের মতোই, সরকার অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে দুর্বল শ্রেণী থেকে আসা শিশুদের কথা পুরোপুরি অস্বীকার করে একটি সম্পূর্ন টপ ডাউন রেডিমেড পদ্ধতি গ্রহণ করেছে।

প্রধানমন্ত্রী PMeVidya অনলাইন শিক্ষা প্ল্যাটফর্মের বিষয়ে কথা বলার সময়, সীথারামন বলেছিলেন যে এই প্রকল্পের মন্ত্রটি হবে “এক জাতি, একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম।” এটি হিন্দুত্ববাদী ফ্যাসিবাদী সরকারের এজেন্ডা পরিষ্কার করে তোলে। কেন এটি “এক জাতি, অনেক ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম” নয়, যা আমাদের শিক্ষাব্যবস্থার বৈচিত্র্যের পক্ষে আরও উপযুক্তভাবে প্রতিনিধিত্ব করতে পারে? কোভিড -১৯ ত্রাণ তহবিল থেকে শুরু করে অনলাইন শিক্ষা প্ল্যাটফর্মের নাম সবকিছু প্রধানমন্ত্রীর নামে কেন? আত্মপ্রেমে বিভোর স্বৈরশাসকের অহংকে সন্তুষ্ট করতে? কোভিড -১৯ মহামারী চলাকালীন যদি এমন একটি জিনিস থাকে যা বহুগুণে বেড়ে গেছে, তবে এটি হ’ল এই নার্সিসিস্ট প্রধানমন্ত্রীর এই দেবতা সুলভ উপাসনা।

কিছু উচ্চতর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও এই অনলাইন পদ্ধতি তে কার্যক্রম পরিচালনার বিরুদ্ধে। দিল্লি ইউনিভার্সিটি অফ টিচারস অ্যাসোসিয়েশনের একটি সমীক্ষায় স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে যে ৮৫% এর বেশি শিক্ষার্থী অনলাইনে ওপেন-বুক পরীক্ষা চান না। (Hindustan Times, May 27th 2020).

যেটা প্রয়াজন সেটা হল কোভিড -১৯ এবং সুপার সাইক্লোন আম্ফান এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং শিক্ষার্থীদের উপর এর প্রভাবের কারণে জাগ্রত বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে আমাদের বিশদ বিশ্লেষণ ও বোঝাপড়া এবং তার ভিত্তিতে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং উন্নত শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে আসা যা প্রযুক্তি এবং মানব-চালিত এবং শিক্ষার্থীদের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে । অতিরঞ্জিত স্ব-উত্তেজক, একচেটিয়া অনলাইন সিস্টেমের প্রয়োজন নেই, যেখানে সুবিধাভোগী শ্রেণির বাচ্চারা পড়াশোনা করতে সক্ষম হবে এবং দরিদ্র শিশুরা আসন্ন অনাহারে মৃত্যু থেকে বাঁচতে তাদের পিতামাতাসহ রাস্তায় হাঁটতে বাধ্য হবে। এই উদাসীন, দরিদ্রবিরোধী, হিন্দুত্ববাদী ফ্যাসিবাদী মোদী সরকারকে ভারতের বাচ্চাদের অস্বীকার করতে এবং এই পরিস্থিতি কে শিক্ষার পুরোপুরি বাণিজ্যিকীকরণের জন্য ব্যবহার করতে দেওয়া চলবে না। এটি শিক্ষার জন্য আরও বেশি বিনিয়োগ এবং পাবলিক শিক্ষাব্যবস্থায় মানুষের বিশ্বাস পুনরুদ্ধার করার একটি সুযোগ। শিক্ষার্থী এবং শিক্ষক – শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দুটি অক্ষকেই – কোভিড -১৯ এবং ক্রমবর্ধমান বৈষম্য উভয়কে লড়াই করার জন্য আরও বেশি সংস্থান সরবরাহ করা উচিত।

Leave a Reply

CAPTCHA