যেমন আশঙ্কা করা হয়েছিল ঠিক তেমনি হল।পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় যে হিংসা, কেন্দ্রীয় আধা-সামরিক বাহিনী দিয়ে সন্ত্রাস চালানো ও ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ও তৃণমূল কংগ্রেসের সংঘর্ষ রাজ্যবাসী প্রত্যক্ষ করলেন তা আগামী দিন যে কত ভয়ঙ্কর হতে পারে তার ইঙ্গিত দিল। মোট ২৯৪টি আসনের মধ্যে ৩০টি আসনে এইদিন নির্বাচন হয়, আর সব কোটি বিধানসভা কেন্দ্রেই দেখা গেল ভারতের নির্বাচন কমিশন কে পকেটে ভরে আর কেন্দ্রীয় বাহিনী কে নিজের লেঠেল বাহিনীর মতন ব্যবহার করে ক্ষমতা দখলের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি।

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী আসার সুফল বিজেপি ছাড়া, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী) [সিপিআই (এম)]-নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্ট-কংগ্রেসভারতীয় ধর্মনিরপেক্ষ ফ্রন্ট (আইএসএফ) এর মহাজোট প্রচার করেছিল। কিন্তু চূড়ান্ত নির্বাচনী হিংসার ঘটনা ঘটলেও পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় এই জোটের দেখা পাওয়া যায়নি। বিশ্লেষণে সৌম্য মণ্ডল।

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় হিংসা

এই প্রবন্ধটি কি আপনার ভাল লেগেছে?

তাহলে মাত্র ৫০০ ভারতীয় টাকার থেকে শুরু করে আপনার সাধ্য মতন এই ব্লগটি কে সহযোগিতা করুন

যেহেতু আমরা FCRA-তে পঞ্জীকৃত নই, অতএব ভারতের বাইরের থেকে সহযোগিতা আমাদের পক্ষে গ্রহণ করা সম্ভব নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

CAPTCHA


পিপলস রিভিউ বাংলা