পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের (West Bengal Assembly election/poll) চতুর্থ দফায়, কোচবিহারের (Coochbehar) শীতলকুচিতে (Sitalkuchi) কেন্দ্রীয় বাহিনীর (Central force) গুলি চালনার (firing) ফলে চার জন ভোটারের মৃত্যু হয়। এর পর নির্বাচন কমিশন (Election Commission) কেন্দ্রীয় বাহিনীর পক্ষে দাঁড়িয়ে বলেছে আত্মরক্ষার জন্যেই নাকি কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলি চালিয়েছে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Prime Minister Narendra Modi) যেমন এই শীতলকুচি গণহত্যার জন্য তৃণমূল কংগ্রেস (TMC) নেত্রী মমতা ব্যানার্জির (Mamata Banerjee) উস্কানিকে দায়ী করেছেন, তেমনি তাঁর ভারতীয় জনতা পার্টি (BJP)-র পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) আবার শীতলকুচি গণহত্যা ঘটাবার হুমকি দিয়েছেন।

বাম নেতা মহঃ সেলিম আবার কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলি চালানোর বিরোধিতা করেও এই ঘটনার জন্য মমতা ব্যানার্জির উস্কানিমূলক ভাষণ কে দায়ী করেছেন। এর মধ্যে কয়েকজন শিক্ষক অভিযোগ করেছেন কেন্দ্রীয় বাহিনী তাঁদের গুলি চালাবার অর্ডারে অগ্রিম সই করতে চাপ দিচ্ছে।কেন্দ্রীয় বাহিনী কি তাহলে এই শীতলকুচি গণহত্যা মডেল অন্যত্রে প্রয়োগ করবে?

এই প্রবন্ধটি কি আপনার ভাল লেগেছে?

তাহলে মাত্র ৫০০ ভারতীয় টাকার থেকে শুরু করে আপনার সাধ্য মতন এই ব্লগটি কে সহযোগিতা করুন

যেহেতু আমরা FCRA-তে পঞ্জীকৃত নই, অতএব ভারতের বাইরের থেকে সহযোগিতা আমাদের পক্ষে গ্রহণ করা সম্ভব নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

CAPTCHA


পিপলস রিভিউ বাংলা